দাম বেশি, বিক্রি কম

নির্ধারিত সময়ের বেশ আগেই কোরবানির পশু নিয়ে রাজধানীতে এসেছেন বিক্রেতারা। তবে আজো তেমন একটা বিক্রি শুরু হয়নি। ক্রেতারা আসছেন, পশু দেখছেন, দরদাম করছেন, তবে খুব কম কিনছেন।

ক্রেতা-দর্শণার্থীরা বলছেন, এবার পশুর দাম বেশি হাঁকছেন বিক্রেতারা। বিক্রেতারা বলছেন, ক্রেতারা দরদাম করে চলে যাচ্ছেন। এই কয়েকদিনে বিক্রি না হলেও রোববার থেকে হয়তো ধুমসে বিক্রি হবে। এ বছর বড় গরুর চেয়ে ক্রেতাদের নজর মাঝারি ও ছোট গরুর দিকে।

রাজধানীর শনিরআখড়া কোরবানির পশুর হাটে ঘুরে ক্রেতা-দর্শণার্থী ও ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

ফরিদপুর থেকে ১০টি গরু নিয়ে এসেছেন কামাল উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘আমি তিনদিন আগে পশু নিয়ে বাজারে এসেছি। এখানে এগুলোকে দেখভাল ও খাওয়ানো- এসবই করছি। এখন পর‌্যন্ত একটাও বিক্রি হয়নি। আশা করছি কাল থেকে বিক্রি হবে।’

রাজধানীতে কোরবানির হাটে পশু বিক্রির অনেকদিনের অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিগত বছরগুলোতে দেখে আসছি কোরবানির দুই দিন আগে বিক্রি শুরু হয়। কারণ, রাখার জায়গার সংকটের কারণে বেশিরভাগ মানুষ ঈদের আগের রাতে পশু ক্রয় করেন। যাদের রাখার মত জায়গা আছে তারা হয়তো কয়েকদিন আগে কেনেন।’

পশু দেখছিলেন শাহেদ নামের একজন। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘গত বছরের তুলনায় এবছর পশু হিসেবে বিক্রেতারা দাম বেশি চাইছেন। দরদামে মিলে গেলে আজই কিনে নিতাম। কিন্তু যদি না মিলে তাহলে কাল আবার আসবো। আর কাল না হলেও পরশু আমার বাজেটের মধ্যে যেরকম গরু হোক কিনে নিয়ে যাবো। নিয়ত যখন করেছি, দাম যাই হোক কোরবানি তো দিতে হবে।’

কুষ্টিয়া থেকে ১৫টি গরু নিয়ে এসেছেন রহিম শেখ। তিনি জানান, তার কাছে ৪০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ২ লাখ টাকা দামের পর্যন্ত গরু আছে। তবে ক্রেতাদের নজর ছোট গরুর দিকে। ৪০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা দামের গরুর দিকে নজর বেশি। বড় গরুর দরদাম তেমন একটা করছেন না ক্রেতারা। তিনি ৫০ হাজার টাকায় একটি গরু বিক্রি করেছেন।

এই বিক্রেতা বলেন, ‘আশা করছি, আগামীকাল বিকেল থেকে ক্রেতারা কিনতে শুরু করবেন। আর বেশি বিক্রি হবে ঈদের আগের দিন বিকেলে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

16 + 6 =