প্রেমে ব্যর্থতায় মস্তিষ্কে চমকপ্রদ ৫ প্রভাব

আপনি যদি প্রেমে ব্যর্থ না হয়ে বর্তমান বয়সে পদার্পণ করে থাকেন তাহলে আপনাকে স্যালুট জানানো উচিৎ। এটা দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, প্রেমে ব্যর্থতা জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। এরকম কোনো পরিস্থিতিতে পড়লে আমাদের শক্ত হয়ে পরিস্থিতির মোকাবিলা করা ছাড়া আসলে কোনো উপায় নেই।

প্রেমে ব্যর্থ হওয়ার ফলে আমাদের হৃৎপিণ্ডে নয় বরং আমাদের মস্তিষ্কেই প্রকৃতপক্ষে প্রভাবটি পড়ে। আসলে কিছু আকর্ষণীয় প্রভাব আছে যা প্রেমে ব্যর্থ হওয়ার ফলে মস্তিষ্কে পড়ে থাকে। প্রেমে ব্যর্থতার পেছনে থাকা বিজ্ঞানটি আমাদের অতীতজনিত সমস্যার সমাধান না করলেও মোটামুটি স্বাভাবিক থাকতে সাহায্য করতে পারে। প্রেমে ব্যর্থতা আসলে একটি জটিল ব্যাপার এবং এর ফলে নানান শারীরিক সমস্যাও দেখা দেয়। এখানে কিছু আকর্ষণীয় ব্যাপার নিয়ে আলোচনা করা হবে যা প্রেমে ব্যর্থতার কারণে মস্তিষ্কে ঘটে থাকে।

* মস্তিষ্কে অধিক উত্তেজনার ফলে শরীরে ব্যথা হওয়া
মস্তিষ্কের এম.আর.আই-এর মাধ্যমে দেখা গেছে যে, মস্তিষ্কের বিশেষ কিছু অঞ্চলে অতিরিক্ত উত্তেজনার ফলে হৃৎপিণ্ডের গতি অতিরিক্ত পরিমাণে বৃদ্ধি পায়, ফলে আমরা শারীরিক অনেক সমস্যা অনুভব করি। মনোবিজ্ঞান বলে, মস্তিষ্কের যে অংশ আবেগজনিত কষ্ট নিয়ন্ত্রণ করে, ঠিক একই অংশ শারীরিক ব্যথার ব্যাপারটা নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। প্রেমে ব্যর্থ হুয়ার ফলে আপনি যে দুঃখ-কষ্টের মধ্যে দিয়ে যান তা আসলে আপনার মস্তিষ্ক নিয়ন্ত্রণ করে থাকে, হৃদয় নয়।

* শ্বাসাঘাত হরমোনগুলো জেগে ওঠা
মস্তিষ্কের অতিরিক্ত উত্তেজনার ফলে আমাদের শরীর চাপসৃষ্টিকারী হরমোন অর্থাৎ শ্বাসাঘাত হরমোন নির্গত করা শুরু করে। করটিসল এবং অ্যাড্রেনালিন নামক হরমোন নির্গত হওয়ার ফলে বমিভাব এবং শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়।

* মস্তিষ্কের বিভিন্ন অংশের মধ্যে সংঘর্ষ হওয়া
গ্রেটার গুড ম্যাগাজিনে প্রকাশিত এবং একজন মনোবিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ, স্নায়ুবিশেষজ্ঞ ও একজন নৃবিজ্ঞানী দ্বারা পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, প্রেমে ব্যর্থ হলে মসিষ্কের বিভিন্ন অংশ অত্যন্ত উত্তেজিত হয়ে পড়ে এবং পরস্পর সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে যায়। মস্তিষ্কের আবেগতাড়িত অনুভূতি নিয়ন্ত্রণকারী অংশ, অতীত অভিজ্ঞতা থেকে কিছু শেখা নিয়ন্ত্রণকারী অংশ; এমন নানা অংশ উত্তেজিত হওয়ার ফলে আমরা নানারকম সমস্যার সম্মুখীন হই। নানান দুশ্চিন্তা এবং হতাশা আমাদের ঘিরে ফেলে।

* নতুন প্রেমে পড়ার মতো মস্তিষ্কের আচরণ করা
এটি দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, প্রেমে ব্যর্থতা আমাদের মস্তিষ্কে নানান অনুভূতি তৈরি করে। আমাদের মস্তিষ্ক নতুন প্রেমে পড়া মানুষের মস্তিষ্কের মতো রূপধারণ করে। মস্তিষ্ক থেকে প্রচুর পরিমাণে ডোপামিন হরমোন নির্গত হওয়ার ফলে এমনটি হয়ে থাকে। ডোপামিন হরমোন মস্তিষ্কে ভালোলাগার অনুভূতি তৈরি করে থাকে। এই ডোপামিন হরমোন ভালোলাগার অনুভূতিগুলোকে তীব্রতর করে তোলে যেমনটি নতুন প্রেমে পড়া কোনো মানুষ অনুভব করে থাকে। একারণে একজন প্রেমে ব্যর্থ আর একজন নতুন প্রেমে পড়া মানুষের মস্তিষ্ক একইরকম দেখায়।

* সম্পর্ক যত দীর্ঘ সময়ের হয় মস্তিষ্ক তত বেশি আঘাত পায়
মস্তিষ্কবিশেষজ্ঞগণ নিশ্চিত করেছেন যে, আমাদের আবেগগুলো সময় পার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আরো তীব্রতর হতে থাকে। আপনি আপনার প্রেমিকার সঙ্গে সময় কাটানোর মাধ্যমে যে স্মৃতিগুলো তৈরি করেছেন তা আপনার মস্তিষ্ক সঞ্চয় করে রাখে; কাটানো সময় এবং তৈরি করা স্মৃতির পরিমাণ যত বেশি হয়, বিচ্ছেদের পরে ততটাই কষ্ট হয় এবং মস্তিষ্ক তত বেশি আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে থাকে। আবেগগুলো গভীর হয়ে যাওয়ার ফলে আমাদের মস্তিষ্কে একটি দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব তৈরি হয়। শুধুমাত্র তীব্র মানসিক শক্তি এবং ধৈর্যের মাধ্যমেই এই কষ্ট থেকে উত্তোরণ সম্ভব। মনক যতটা সম্ভব শক্ত করে নিজের ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমেই একমাত্র প্রেমে ব্যর্থতার প্রভাব থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।

তথ্যসূত্র : বাস্টল্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 + twenty =