কুড়িগ্রামে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ : আটক ৩

কুড়িগ্রমে কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষণকারীদের তিনজনকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে সদর থানা পুলিশ।

এদিকে মেয়েটি কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকলেও বখাটেদের কারণে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে অভিযোগ করেছেন তার স্বজনরা।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নের প্রয়াত এক মুক্তিযোদ্ধার মেয়ে ও কুড়িগ্রাম কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী পার্শ্ববর্তী বাঞ্ছারাম গ্রামের কামরুল নামের এক ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। প্রেমের সূত্র ধরে দুজনে বুধবার রাত ৮টার দিকে শ্যামলী পরিবহনের গাড়িতে ঢাকা যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। পরে প্রেমিকের কথামতো মেয়েটি একা বাড়ি থেকে বের হয়ে সদরের আরডিআরএস বাজারসংলগ্ন একটি পেট্রোল পাম্পের সামনে অপেক্ষা করতে থাকে। এ সময় তার পিছু নেওয়া মোগলবাসা এলাকার কিছু বখাটে ছেলে তিনটি মোটর সাইকেলে জোরপুর্বক মেয়েটিকে উঠিয়ে নিয়ে পার্শ্ববর্তী কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নের উৎসাহীপুর গ্রামের একটি নির্জন এলাকার ধানক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে ৮ থেকে ১০ জন যুবক তাকে রাতভর ধর্ষণ করে রাস্তার পাশে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসীর সহয়তায় পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ধর্ষনের শিকার ওই ছাত্রী জানান, আমি ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি, যাতে আর কোনো মেয়ের ওপর এ ধরনের ঘটনা না ঘটে।

ধর্ষিতাকে পুলিশি পাহারায় কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে জানান ধর্ষিতার মা ও তার স্বজনরা। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিও জানান তারা।

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. রওশন কবীর জানান, এ ঘটনায় মেয়েটি নিজেই বাদী হয়ে সদর থানায় মামলা দায়ের করেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত মাসুদ, হৃদয় হাসান সুমন ও তারাপদকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × five =