সু চিকে দেওয়া সম্মাননা বাতিল করল অ্যামনেস্টি

মিয়ানমারের নেতা অং সান সু চিকে দেওয়া সর্বোচ্চ সম্মাননা বাতিল করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

দেশটির সেনাবাহিনী দ্বারা রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংস নির্যাতনের ঘটনায় ‘উদাসীনতার’ কারণে সু চিকে দেওয়া সম্মাননা কেড়ে নেওয়া হয়।

অ্যামনেস্টি সোমবার জানায়, তারা ২০০৯ সালে ১৫ বছর গৃহবন্দি থাকাকালীন সু চিকে দেওয়া ‘অ্যাম্বাসেডর অব কনসেন্স অ্যাওয়ার্ড’ বাতিল করতে যাচ্ছে।

সু চিকে লেখা এক চিঠিতে অ্যামনেস্টির প্রধান কুমি নাইড়ু বলেন, ‘আজ, আমরা খুবই হতাশার সঙ্গে জানাচ্ছি যে, আপনি এখন আর আশা, সাহস এবং মানবাধিকার রক্ষার প্রতীক হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করছেন না। অ্যাম্বাসেডর অব কনসেন্স অ্যাওয়ার্ড গ্রহীতা হিসেবে আপনার চলমান অবস্থান অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল আর কোনোভাবেই যুক্তিসঙ্গত মনে করছে না। তাই, খুবই দুঃখের সঙ্গে জানাতে হচ্ছে, আপনাকে দেওয়া এই অ্যাওয়ার্ড আমরা প্রত্যাহার করে নিচ্ছি।’

অ্যামনেস্টি জানায়, তারা সু চিকে গত রোববার তাদের এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে অবহিত করেছে।

এ ব্যাপারে এখনো কোনো মন্তব্য করেননি অং সান সু চি।

সু চি এক সময় ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা’ হিসেবে প্রশংসিত হয়েছিলেন। তবে ২০১৭ সালের আগস্টে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন শুরু হওয়ার পর থেকে তার নীরব ভূমিকার কারণে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সম্মাননা ইতোমধ্যে তাকে হারাতে হয়েছে।

তথ্য : আল জাজিরা ও বিবিসি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 − four =