সংলাপ ব্যর্থ হলে রোডমার্চ, তফসিল না পেছালে পদযাত্রা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ ব্যর্থ হলে পরদিন রাজশাহী অভিমুখে রোডমার্চ করে সেখানে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে ঐক্যফ্রন্ট। তফসিল না পেছালে নির্বাচন কমিশন অভিমুখে পদযাত্রারও ঘোষণা দিয়েছে জোটটি।

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জনসভা থেকে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির মহাসচিব ও জোটটির মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সরকারকে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন ও খালেদা জিয়াসহ সকল রাজবন্দিদের মুক্তির দাবিতে এই জনসভার আয়োজন করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

জনসভায় সভাপতির বক্তব্য দিতে গিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমাগীকালের (বুধবার) সংলাপে আমাদের দাবি মানা না হলে ৮ নভেম্বর রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রোডমার্চ হবে। পরে সেখানে ৯ নভেম্বর সমাবেশ হবে। একইভাবে খুলনা, বরিশাল, ময়মনসিংহ, কুমিল্লায়ও সমাবেশ হবে। নির্বাচন কমিশন যদি তফসিল না পেছায় তাহলে নির্বাচন অভিমুখেও পদযাত্রা হবে।’

জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন গণফোরাম সভাপতি ও ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ড. কামাল হোসেন, প্রধান বক্তা ছিলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের আ স ম আবদুর রব। এছাড়া কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, গণফোরামের মোস্তফা মহসীন মন্টু, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপি নেতা রফিকুল ইসলাম মিয়া, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ডাকসুর প্রাক্তন ভিপি সুলতাম মুহাম্মদ মনসুর, গণস্বাস্থ্যের ডা. জাফরুল্লাহ, জমিয়তে উলামায়ের মাওলানা নুর কাশেমী, বিএনপি নেতা জয়নুল আবেদীন, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী, বিজেপির আন্দালিব রহমান পার্থ, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার, বিএনপির আবদুল্লাহ আল নোমান, জেএসডির আবদুল মালেক রতন, এলডিপির রেদোয়ান আহমেদ, তানিয়া রব, বিএনপির আমানউল্লাহ আমান, ইসলামী ঐক্যজোটের অ্যাডভোকেট আবদুল লতিফ, খেলাফত মজলিসের ড. আহমেদ আবদুল কাদের, বিএনপির সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ফজলুল হক মিলন, বিকল্পধারা বাংলাদেশ (একাংশ) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. নুরুল আমিন ব্যাপারী, নাগরিক ঐক্যের এ এম আকরাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের হাবিবুর রহমান, জেএসডির এম এ গোফরান, বিএনপির হাবিবুর রশিদ হাবিব, আহসান উল্লাহ হাসান, সাইফুল আলম নীরব, আফরোজা আব্বাস, রাজীব আহসান প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ten − 5 =