‘এরশাদের শাসনামলই ছিল সেরা’

‘প্রাক্তন সফল রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বে জাতীয় পার্টির সরকার আমলে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিল। জানমালের নিরাপত্তা ছিল। মানুষের মুখে হাসি ছিল। সুশাসন ও উন্নয়নে এরশাদের সোনালি শাসনামলই ছিল সেরা।’

সোমবার জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে সম্মিলিত জাতীয় জোটের লিয়াজোঁ কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে এ কথা বলেন দলের মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার।

জাপা মহাসচিব বলেন, অনেক রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় গেছে, কিন্তু জাপা আমলের সুশাসন ও উন্নয়ন কোন রাজনৈতিক দল দিতে পারেনি, পারেনি মানুষে ভাগ্যের উন্নয়ন করতে। তাই আবারো দেশের মানুষ সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের দিকে তাকিয়ে আছে। তারা চায়, জাতীয় পার্টি ক্ষমতাই আসুক, এরশাদই হোক আগামীর রাষ্ট্রপতি।

দেশের মানুষের প্রত্যাশা পুরণে এরশাদের নেতৃত্বে সরকার গঠনে লাঙলের পক্ষে মাঠে ঘাটে কাজ করতে সম্মিলিত জাতীয় জোটের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান জাপা মহাসচিব।

তিনি বলেন, ২০ অক্টোবর সম্মিলিত জাতীয় জোটের মহাসমাবেশ। এই সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত করে দেশের মানুষের আস্থা অর্জনকে আরো সুদৃঢ় করতে হবে।

জোটের লিয়াজো কমিটির সভায় জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, সুনীল শুভরায়, এসএম ফয়সল চিশতী, ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব মাওলানা এমএ মতিন, সিনিয়র যুগ্ম মহাসিচব মাওলানা সউম আবদুস সামাদ, অধ্যাপক এমএ মোমেন, সৈয়দ মোজাফ্ফর হোসেন, অ্যাড. ইসলাম উদ্দিন দুলাল, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্মমহাসচিব মাওলানা জালাল উদ্দিন আহম্মদ, আতাউল্লাহ আমিনী, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতী শরাফত হুসেইন, মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, ঢাকা মহানগর সভাপতি এনামুল হক মুছা, ইসলামি মহাজোটের চেয়ারম্যান আবু নাসের ওয়াহেদ ফারুক, কো-চেয়ারম্যান কেএম আবু হানিফ হুদয়, মহাসচিব আবুল হাসনাত, বিএনএ’র চেয়ারম্যান সেকান্দার আলী মনি, মহাসচিব অ্যাড. মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, মুখপাত্র শেখ মোস্তাফিজুর রহমান, আকতার হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

মহাসমাবেশ সফল করতে কমিটি :
২০ অক্টোবরের মহাসমাবেশ সফল করতে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারকে আহবায়ক করে ১৫ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিটির সদস্যরা হলেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ এমপি, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, এসএম ফয়সল চিশতী, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, যুগ্মমহাসচিব জহিরুল আলম রুবেল, ইসলামি ফ্রন্টের মহাসচিব এমএ মতিন, যুগ্ম মহাসচিব সউম আবদুস সামাদ, ইসলামী মহাজোটের কেএম আবু হানিফ হুদয়, মাওলানা মো. আসাদুজ্জামান, খেলাফত মজলিসের মো. জালাল উদ্দিন আহমেদ, মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন, বিএনএ’র অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন, শেখ মোস্তাফিজুর রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

20 − 6 =