চাপের কাছে নতি স্বীকার করবেন না, ডিসিদের কাদের

কাজ করতে গিয়ে কোনো প্রভাবশালী মহলের চাপের কাছে নতি স্বীকার না করতে জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার সচিবালয়ে জেলা প্রশাসক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে তিনি এ আহ্বান জানান। একই সঙ্গে তিনি মন্ত্রী ও ভিআইপিদের প্রটোকল কমিয়ে কাজ করার নির্দেশনা দেন।

মন্ত্রিপরিষদের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনের সপ্তম কার্য-অধিবেশনে ডিসিদের সঙ্গে বৈঠক করেন ওবায়দুল কাদের। এ সময় রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকও উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমের সভাপতিত্বে সম্মেলনে ডিসিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমি তাদের স্পষ্ট করে বলেছি, কাজ করতে গিয়ে কোনো প্রভাবশালী মহলের চাপের কাছে নতি স্বীকার করবেন না। এমন কিছু করবেন না যাতে সরকার বিব্রত হয়। আর মন্ত্রী ও ভিআইপিদের প্রটোকল কমিয়ে কাজ করার নির্দেশনা দিয়েছি।

‘এটাও বলেছি, আপনারা মন্ত্রী-ভিআইপিদের এত প্রটোকল দিতে গেলে কাজ করবেন কখন? সারা দিন যদি ডিসি-এসপি মন্ত্রীর পিছনে ঘোরে তাহলে সে কাজ করবে কখন? আমরা দুই মন্ত্রী বলেছি, আমাদের প্রটোকলের দরকার নেই। প্রটোকল কমানো উচিত। ওরা কাজ করবে কীভাবে? আর সরকারের শেষ বছর, এখন অনেক কাজ ডিসি-এসপিদের,’ বলেন ওবায়দুল কাদের।

ডিসিদের সঙ্গে আর কী বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের নিজেদের ব্যাপারটা, আমার প্রায়োরিটি হচ্ছে, এই সময়ে নতুন বড় বড় স্বপ্ন দেখে কোনো লাভ নেই। যে স্বপ্ন এখন নির্মাণ হচ্ছে- যেমন পদ্মা সেতু, যেমন মেট্রোরেল, যেমন কর্ণফুলী টানেল- এই নির্মাণকাজগুলো যতদূর সম্ভব অক্টোবরে নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণা পর্যন্ত এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, কাজগুলোকে ত্বরান্বিত করা। আর ইমিয়েডেট যেটা- রাস্তাগুলোকে পাসঅ্যাবল করা, ইউজঅ্যাবল করা, সচল করে রাখা। আমাদের পক্ষে এই সময়ে নতুন রাস্তা করা সম্ভব নয়। কাজেই আমি এই স্বপ্নটা দেখাব না।’

বর্তমান সরকারের শেষ সময়ে ডিসি সম্মেলনে নির্বাচনকে সামনে রেখে ডিসিদের কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে কি না? এ বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘এখানে একটা বিষয় পরিষ্কার- নির্বাচনের শিডিউল ডিক্লেয়ারের জন্য ৩ মাসের মতো সময় আছে। কাজেই এ সময়ে তাদের প্রতি সরকারের যে জেনারেল ম্যাসেজ, সেটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অলরেডি ডিসি সম্মেলনের উদ্বোধনীতে বলে দিয়েছেন। এর সঙ্গে সরকার, আমরা মন্ত্রীরা সবাই একমত। কাজেই সরকারপ্রধানের ম্যাসেজটাই আমাদের ম্যাসেজ। এর বাইরে উই ক্যান নট থিংক বেয়ন্ড দ্যাট।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘শেষ ঈদ ঈদুল আজহা, ঈদুল আজহার আগে ভারী বর্ষণ, এর ওপর ভারী পরিবহন, তারপর আবার পশুর হাট, পশুবাহী পরিবহন, রং সাইডে আসা, যানজেটের আরো কিছু কারণ যেমন ইজিবাইক, ব্যাটারিচালিত রিকশা- এসব বিষয়ে মূলত ডিসি সাহেবদের বলেছি।’

তিনি বলেন, রমজানের ঈদের সময়ও তারা দায়িত্ব পালন করেছেন, এজন্য আমরা স্বস্তিদায়ক ঘরমুখী ঈদযাত্রা দিতে পেরেছি। সফল করতে পেরেছি। এবারও যাতে গতবারের দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে ঈদুল ফিতরের মতো মানুষ যাতে স্বস্তিতে বাড়ি যেতে পারে, আবার স্বস্তিতে কর্মস্থলে ফিরে আসতে পারে, যানজটের কারণগুলো দূরীকরণে তাদের চেষ্টা অব্যাহত রাখতে বলেছি।’

‘মনিটরিংটা যাতে ঈদের পরও রাখা হয়, ঈদের পর অ্যাকসিডেন্টে মৃত্যুর হার অনেক বেশি। সেজন্য ঈদের পর আমরা ঢাকা থেকেও মনিটরিং রাখব, জেলা পর্যায়েও জেলা প্রশাসকদের আমরা বলেছি, তারা মনিটরিংটা যাতে অব্যাহত রাখে, দুর্ঘটনা যাতে কমিয়ে আনা যায়,’ বলেন ওবায়দুল কাদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ten − 7 =