সন্ত্রাস-মাদক নির্মূলে বাধা এলে আমাকে জানান: প্রধানমন্ত্রী

চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, পেশীশক্তি, সন্ত্রাস ও মাদক নির্মূলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসকদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মঙ্গলবার সকালে তার তেজগাঁও কার্যালয়ে তিন দিনব্যাপী জেলা প্রশাসকদের সম্মেলন উদ্বোধনকালে বলেন, জেলা প্রশাসকদের শিল্পাঞ্চলে শান্তি রক্ষা, পণ্য-পরিবহন ও আমদানি-রপ্তানি নির্বিঘ্ন করতেও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে আমি বলতে চাই-বিনা দ্বিধায় আপনারা এই টেন্ডারবাজি, পেশীশক্তি, সন্ত্রাস এবং মাদক নির্মূল করবেন।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘এখানে কে কোন দল করে, কে কি করে সেগুলো দেখার কোনো দরকার নেই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যদি কেউ বাধা দেয়, আপনারা সরাসরি আমার সঙ্গে বা আমার অফিসে যোগাযোগ করতে পারবেন।’

‘সরকার প্রধান হতে পারি-আমি কিন্তু জাতির পিতার কন্যা, আপনাদের সেটাও মনে রাখতে হবে’ বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা সমাজ থেকে এসব অশুভ তৎপরতা নির্মূল করে মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের চূড়ান্ত লক্ষ্য হচ্ছে ক্ষুধা, দারিদ্র্য, নিরক্ষরতা, জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার অভিশাপমুক্ত একটি সুখী, সমৃদ্ধ, ন্যায়ভিত্তিক, জ্ঞান-নির্ভর ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণ। এক্ষেত্রে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকগণের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসকদের অতীতের ধ্যান ধারণা পরিহার করে সেবার মনোভাব নিয়ে দায়িত্ব পালন করে যাবার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ঔপনিবেশিক মানসিকতা পরিহার করে আপনাদের সেবার মনোভাব নিয়ে সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে। তবেই, দেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী জেলা প্রশাসকদের উদ্দেশ্যে বলেন, সরকারের পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের দায়িত্ব আপনাদের, মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের। আমি বিশ্বাস করি যে, আপনাদের মাঝে অনেক উদ্ভাবনী শক্তি আছে। আপনারা এই উদ্ভাবনী শক্তি কাজে লাগিয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন।

অনুষ্ঠানে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক এবং মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান বক্তৃতা করেন। মন্ত্রীপরিষদ সচিব অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন।

এতে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের পক্ষে নওগাঁর জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান, চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দিন আহমেদ ও মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক বেগম শায়লা ফারজানা এবং রাজশাহীর বিভাগীয় কমিশনার মো. নূর-উর-রহমান বক্তৃতা করেন।

সরকারের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের সঙ্গে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের সরাসরি মত বিনিময়ের সুযোগ সৃষ্টির জন্যই এই সম্মেলনের আয়োজন। তৃণমূল পর্যায়ে সরকারের নীতি ও কর্মসূচি বাস্তবায়নে সমস্যাসমূহ এবং সেগুলোর সমাধানের পথ ও কৌশল নির্ধারণে এ সম্মেলন কার্যকর ভূমিকা পালন করে থাকে। এ নিয়ে পঞ্চমবারের মতো এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী পরিষদ সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ও সচিব, পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, সব জেলার জেলা প্রশাসক এবং বিভাগীয় কমিশনাররা উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যসূত্র : বাসস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × five =